শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ১১:৫৯ অপরাহ্ন

১৭ বছরের অপেক্ষা ঘুচিয়ে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ভারত

আনলাইন ডেস্ক
  • প্রকাশিত সময় : ৩০ জুন, ২০২৪, ১২:২২
  • ৩২ এই সময়
  • শেয়ার করুন

জিততে হলে রেকর্ড গড়তে হতো দক্ষিণ আফ্রিকাকে। সেই রেকর্ড গড়া হলো না প্রোটিয়াদের। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ফাইনাল ইতিহাসের সর্বোচ্চ রান তাড়া করে হলো না জেতা। ফাইনালে এসে চোক করল দক্ষিণ আফ্রিকা। ভারতের বিপক্ষে বার্বাডোজের ফাইনালে হারল ৭ রানে।

দীর্ঘ ১৭ বছর পর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জিতলেন রোহিত শর্মারা। ২০০৭ সালে এই টুর্নামেন্টের প্রথম সংস্করণে শিরোপা জিতেছিল তারা। এ টুর্নামেন্টে সর্বোচ্চ দুইবার শিরোপা জিতেছে ইংল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ। এবার তাদের পাশে বসল ভারতও। তিন দলই সমান তিনবার ফাইনাল খেলেছে। চোক অপবাদ ঘুচিয়ে নিজেদের ইতিহাসে প্রথমবার ফাইনালে উঠেছিল প্রোটিয়ারা। কিন্তু চাপের মুখে তারা ভেঙে পড়ল আবারও।

১৭৭ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে দলীয় ১২ রানে ২ উইকেট হারিয়ে বসে দক্ষিণ আফ্রিকা। ভারতের দুই পেসার শুরুতেই ফিরিয়ে দেন ওপেনার রিজা হেন্ডরিকস (৪) ও অধিনায়ক এইডেন মার্করামকে (৪)। তৃতীয় উইকেটে ত্রিস্তান স্তাবসের (৩১) সঙ্গে ৩৮ বলে ৫৮ রানের জুটি গড়ে সেই চাপ সামাল দেন উইকেটরক্ষক কুইন্টন ডি কক। এরপর প্রোটিয়া ওপেনার ৩৬ রানের আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ জুটি গড়েন হেনরিখ ক্লাসেনের সঙ্গে।

ডি ককের (৩৯) বিদায়ের পর ডেভিড মিলারের সঙ্গে ২২ বলে ৪৫ রানের জুটি গড়ে ম্যাচটা প্রায় বের করে এনেছিলেন ক্লাসেন। ৩৬ বলে ৫৪ রান যখন দরকার তখন অক্ষর প্যাটেলের করা ইনিংসের ১৫ তম ওভারে ২ চার ও ২ ছয়ে ২৪ রান নিয়ে সমীকরণ ৩০ বলে ৩০ রানে নিয়ে আসেন ক্লাসেন। কিন্তু হার্দিক পান্ডিয়ার করা ইনিংসের ১৭ তম ওভারের প্রথম বলে তিনি ফিরে গেলে বিপদে পড়ে যায় প্রোটিয়ারা। ক্লাসেন ২৭ বলে ২ চার ও ৫ ছয়ে করেন ৫২ রান।

শেষ ওভারে জয়ের জন্য দক্ষিণ আফ্রিকার দরকার ছিল ১৬ রান। পান্ডিয়ার ওভারে প্রথম বলে ছয় মারতে চেয়েছিলেন মিলার (২১)। তবে বাউন্ডারিতে দুর্দান্ত এক ক্যাচে তাঁকে ফেরান সূর্যকুমার যাদব। তখনই ম্যাচটি হাতের মুঠোয় চলে আসে ভারতের। তবে পরের বলে কাগিসো রাবাদার ব্যাট ছুঁয়ে চার হলে রোমাঞ্চ জমে ওঠে। তবে সমীকরণটা আর মেলানো হয়নি প্রোটিয়াদের। ১১ বছর পর আইসিসির কোনো শিরোপা জয়ের আনন্দে মেতে ওঠে ভারত। ২০১৩ সালে সবশেষ আইসিসি চ্যাম্পিয়নস ট্রফি জিতেছিল তারা।

এর আগে নিজের সেরা ইনিংসটি যেন ফাইনালের জন্যই তুলে রেখেছিলেন বিরাট কোহলি। এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সেমিফাইনালের আগ পর্যন্ত রান করেছিলেন ৭৫। ফাইনালে দলের বিপর্যয়ে ঢাল হয়ে খেলেছেন ৭৬ রানের অসাধারণ ইনিংস।

টস জিতে আগে ব্যাটিংয়ের নেমে পাওয়ার-প্লেতে খেই হারায় ভারত। ১.২ ওভারেই তারা তোলে ২৩ রান। এরপরই ১১ রানের ব্যবধানে হারায় ৩ উইকেট। তারপর অক্ষর প্যাটেল ও শিবাম দুবেকে নিয়ে কোহলির দারুণ দুটি জুটি, যা দলকে বড় স্কোর গড়তে সহায়তা করে।

শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক ব্যাটিংয়ে আভাস দেয় ভারত। মার্কো ইয়ানসেনের করা প্রথম ওভারে তোলে ১৫ রান। পরের ওভারে কেশব মহারাজের চতুর্থ বলে সুইপ করতে গিয়ে ব্যাকওয়ার্ড স্কয়ার লেগে হেনরিখ ক্লাসেনকে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন ওপেনার রোহিত শর্মা (৯)। এক বল পর ঋষভ পন্তকেও (০) ফেরান মহারাজ। পঞ্চম ওভারে কাগিসো রাবাদা ফেরান সূর্যকুমার যাদবকে (৩)। ৩৪ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে কঠিন বিপর্যয়ে পড়ে ভারত। চতুর্থ উইকেটে অক্ষর প্যাটেলকে সঙ্গে নিয়ে প্রতিরোধ গড়েন কোহলি। বিপর্যয় সামলে দুজনে গড়েন ৫৪ বলে ৭২ রানের জুটি।

১৪ তম ওভারে অক্ষর রান-আউট হলে ভাঙে এই জুটি। বেশ খানকিটা দূর থেকে দুর্দান্ত থ্রোয়ে তাঁকে ফেরান উইকেটরক্ষক কুইন্টন ডি কক। ৩১ বলে ৪৭ রানের গুরুত্বপূর্ণ এক ইনিংস খেলেছেন এই বাঁহাতি ব্যাটার। পঞ্চম উইকেটে শিবম দুবে-কোহলি জুটি ৩৩ বলে ৫৭ রানের আরেকটি দারুণ জুটি গড়েন। ১৯ তম ওভারে ইয়ানসেনের শিকার হওয়ার আগে ৫৯ বলে ৭৬ রানের দুর্দান্ত এক ইনিংস খেলেছেন কোহলি। দুবে ১৬ বলে করেন ২৭ রান। শেষ পর্যন্ত ভারত ৭ উইকেটে করে ১৭৬ রান। প্রোটিয়াদের হয়ে দুটি করে উইকেট নিয়েছেন মহারাজ ও নরকিয়া।

এই বিভাগের আরো খবর

ব্রেকিং:

আফগানিস্তানে হামলা চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা পাকিস্তানের

১৭ জেলায় হতে পারে ৬০ কিমি বেগে ঝড়, সতর্ক সংকেত

সরকারি হাসপাতালগুলোতে আছে রাসেল’স ভাইপারের এন্টিভেনম

বৃষ্টি অব্যাহত থাকতে পারে, কোথাও কোথাও ভারি বর্ষণের শঙ্কা

শিক্ষকদের কর্মবিরতিতে অচল ৫৫ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়

স্ত্রীকে ফেসবুক থেকে দূরে রাখা নিষ্ঠুরতার শামিল

রূপগঞ্জে জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে বাড়ি ঘিরে রেখেছে এটিইউ

ধনী কর্মকর্তাদের সম্পদের উৎসের খোঁজ শুরু করছে দুদক

টি-২০ বিশ্বকাপে বিভিন্ন ক্ষেত্রে সেরার পুরস্কার পেলেন যারা

এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার্থীদের মানতে হবে যেসব বিশেষ নির্দেশনা