শনিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৩, ০৩:৫৬ অপরাহ্ন

আমাদের অগ্রযাত্রাটা অনেকের পছন্দ হবে না: প্রধানমন্ত্রী

একুশে নিউজ
  • প্রকাশিত সময় : মঙ্গলবার, ২৪ জানুয়ারি, ২০২৩
  • ৭ এই সময়
  • শেয়ার করুন

আজ মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) বাংলাদেশ অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের (বিএএসএ) বার্ষিক সম্মেলন ২০২৩-এ প্রধান অতিথির ভাষণে, জনগণকে একটি সুন্দর জীবন দেওয়ার লক্ষ্য নিয়েই রাষ্ট্র ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হয়েছেন উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, তার লক্ষ্য ২০৪১ সাল নাগাদ জনগণের মাথাপিছু আয় ১২ হাজার মার্কিন ডলারে উন্নীত করা।

তবে, দেশের এই অগ্রযাত্রায় তিনি যে কোনো ষড়যন্ত্র মোকাবিলাতেও প্রস্তুত। একই সঙ্গে সবাইকে এ ব্যাপারে সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা মাথাপিছু আয় ২ হাজার ৮২৪ মার্কিন ডলারে উন্নীত করতে পেরেছি। কিন্তু আমাদের এখানেই থেমে থাকলে চলবে না, ধাপে ধাপে এগিয়ে যেতে হবে। ২০৪১ সালের মধ্যে আমাদের মাথাপিছু আয় যাতে ১২ হাজার মার্কিন ডলার হয় আমাদের সেই লক্ষ্য স্থির করতে হবে এবং সেভাবেই পরিকল্পনা নিয়ে এগোতে হবে।’

‘তবে, এই করোনার কারণে অনেক দেশ পিছিয়ে গেছে, আমরাও একটা ধাক্কা খেয়ে ছিলাম। কিন্তু মানুষকে বুঝতে দেইনি,’ যোগ করেন তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, এই দুর্যোগের মধ্যেও অর্থনীতির হিসেবে বাংলাদেশ এগিয়েছে, অনেক সংস্থাই এ কথাটা বলছে বাংলাদেশ এখন ৩৫তম বৃহৎ অর্থনীতির দেশ। এর মাঝেও আমরা প্রায় ৫ ধাপ এগিয়েছি। এটাও কিন্তু কম কথা নয়। কিন্তু, এ কথাটাও মনে রাখবেন যে যত বেশি সামনের দিকে দ্রুত এগোবেন তত বেশি চক্রান্ত, ষড়যন্ত্র থাকতে পারে। কারণ অনেকেইতো আছে- যারা আমাদের স্বাধীনতা আসুক সেটাই চায়নি।

তিনি বলেন, কাজেই আমাদের অগ্রযাত্রাটা অনেকের পছন্দ হবে না, যারা স্বাধীনতার সময় আমাদের সমর্থন দেয়নি। কারণ তারা মনে করতে পারে তাদের সাথে টেক্কা দিয়ে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি, কিন্তু আমরা তা পারি। নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ করে বাংলাদেশের মানুষ যে পারে সেটা আমরা প্রমাণ করেছি।

তবে, এই করোনাকালে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মাঠ প্রশাসনের দায়িত্ব পালনে এবং উদ্ভূত চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করেও উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা অর্জনের জন্য কর্মকর্তাদের কৃতিত্ব দেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রশাসনের নবীন বিসিএস কর্মকর্তাদের ২০৪১ সালের সৈনিক হিসেবে আখ্যায়িত করে তিনি বলেন, ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে একটি উন্নত, সমৃদ্ধশালী ও স্মার্ট বাংলাদেশে রূপান্তরিত করা এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পরিকল্পনা অনুযায়ী জনগণকে উন্নত জীবন দেয়ার দায়িত্ব তাদের রয়েছে।

তিনি বলেন, দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে তিনি সরকারি কর্মকর্তাদের পেশাগত দায়িত্ব পালনে আন্তরিক দেখেছেন। ৪র্থ শিল্প বিপ্লব মোকাবেলায় উচ্চ প্রযুক্তিগত জ্ঞানসম্পন্ন দক্ষ কর্মী বাহিনী গড়ে তোলার ওপরও গুরুত্বারোপ করেন প্রধানমন্ত্রী।

জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী মো. ফরহাদ হোসেন, মন্ত্রিপরিষদ সচিব মো. মাহবুব হোসেন ও প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মো. তোফাজ্জল হোসেন মিয়া অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোস্তফা কামাল এবং ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন সংগঠনের মহাসচিব ও শিল্প মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব এস এম আলম।

এই বিভাগের আরো খবর
ব্রেকিং:

প্রধানমন্ত্রী রবিবার ১,৩১৬.৯৭ কোটি টাকার প্রকল্প উদ্বোধন করবেন

‘পাঠান’ ছবি বাংলাদেশে আসার বিষয়ে যা বললেন কাদের

১২ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে বিপাকে সিলেট

‘পুতিন-জেলেনস্কির মধ্যে আলোচনা অসম্ভব’

ফিলিপাইনে মাংসের চেয়ে পেঁয়াজের দাম বেশি!

পাকিস্তানি রুপির ভয়াবহ দরপতন, ২৫৫ রুপিতে মিলছে ১ ডলার

ডিসেম্বরে ‘মুজিবগ্রাম সম্মেলন’

সেচ মৌসুমে তেমন লোডশেডিং থাকবে না: প্রতিমন্ত্রী

ইউক্রেনে চারটি লেপার্ড-২ ট্যাংক পাঠাবে কানাডা

রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযানে আটক ৭০