আজ ২৩শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ শুক্রবার || ১০ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ


ফাইল ছবি

সাত দিনের জন্য আরোপ করা নিষেধাজ্ঞায় করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে প্রথম দিন তা পালনে সারা দেশেই ঢিলেঢালা ভাব দেখা গিয়েছে। প্রায় ১১ ধরনের বিধি-নিষেধের মধ্যে বাস-মিনিবাস ছাড়া সবই কমবেশি চলেছে। বেশির ভাগ মার্কেট অবশ্য বন্ধ ছিল। তবে রাস্তায় মানুষজনের কমতি ছিল না। এমনকি অনেক মানুষের মাস্কও ছিল না। আর নিষেধাজ্ঞা মানাতেও সরকারের পক্ষ থেকে তেমন কড়াকড়ি দেখা যায়নি।

নিষেধাজ্ঞা মেনে শুধু গণপরিবহন বন্ধ ছিল। তবে রাস্তায় ছিল অটোরিকশা। সড়ক ছিল রিকশার দখলে। অনেক দূরের পথেও রিকশা চলতে দেখা গিয়েছে। রাস্তায় প্রাইভেট কারও দেখা যায় বেশ। নিধি-নিষেধ মেনে বিভিন্ন মার্কেট বন্ধ থাকলেও নির্দিষ্ট সময়ের জন্য মার্কেট খোলার দাবিতে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ করেছেন ব্যবসায়ী ও কর্মচারীরা।

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, সরকার নিষেধাজ্ঞা দিয়েই তাদের দায়িত্ব শেষ করেছে। কিন্তু নিষেধাজ্ঞা বাস্তবায়নের দিকে তাদের খুব একটা খেয়াল নেই। গণপরিবহন বন্ধ করে অফিস খোলা রাখা হয়েছে। এতে মানুষকে যে কোনো ভাবেই হোক অফিসে যেতে হয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মানার তেমন কোনো বালাই ছিল না। এতে যিনি রাস্তায় বেরিয়েছেন তিনিও ঝুঁকিতে পড়েছেন এবং বাড়ির লোকদেরও আগের চেয়ে বেশি ঝুঁকিতে ফেলেছেন।

বিধি-নিষেধ জারির পর রাজধানীসহ সারা দেশে কী পরিস্থিতি চলছে সে বিষয়ে খোঁজ রাখছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। গতকাল সোমবার বিকেলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খানের কাছে বিধি-নিষেধ পালনে ঢিলেঢালা ভাবের বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, ‘আমরা বিষয়গুলো দেখছি। আজ তো প্রথম দিন যাচ্ছে, আগামীকাল (মঙ্গলবার) বিষয়গুলো নিয়ে আমরা আলাপ-আলোচনা করব।’ প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ‘সরকারের নির্দেশনা সমন্বিতভাবেই বাস্তবায়ন করা হবে।’

ঢাকার বাইরে বিভিন্ন জেলার চিত্রও প্রায় একই। গণপরিবহন ও মার্কেট ছাড়া সব কিছুই ছিল খোলা। চট্টগ্রামে গণপরিবহন (বাস, মিনিবাস ও হিউম্যান হলার) বন্ধ থাকলেও পিকআপ ভ্যান, প্রাইভেট কার, মাইক্রোবাস, প্রাইভেট সিএনজিচালিত অটোরিকশাসহ বিভিন্ন যানবাহন সমানে চলেছে। এর বাইরে নগরজুড়ে কয়েক লাখ পেডাল ও ব্যাটারিচালিত রিকশা অবাধে চলাচল করেছে। সেই সঙ্গে প্রধান সড়ক, উপসড়ক থেকে শুরু করে অলিগলির সর্বত্র ছিল মানুষের আনাগোনা।

সরকারের ১১ নিষেধাজ্ঞার মধ্যে ছিল- সব সরকারি-বেসরকারি অফিসে শুধু জরুরি কাজে সীমিত পরিসরে প্রয়োজনীয় জনবলকে প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব পরিবহনের মাধ্যমে আনা-নেওয়া। কিন্তু তা মানেনি বেসরকারি অফিসগুলো। তারা ঠিকই অফিস খোলা রেখেছে; কিন্তু কর্মীদের যাতায়াতের ব্যবস্থা করেনি। এতে সকালে অফিসে যেতে ও বাসায় ফিরতে বেশ দুর্ভোগ পোহাতে হয় কর্মীদের। রিকশা, হেঁটে, ভাড়ায় মোটরসাইকেলে, পিকআপ বা কয়েকজন মিলে প্রাইভেট কার ভাড়া করে অফিসে যেতে দেখা যায়। এতে অন্যান্য দিনের চেয়ে বেশি স্বাস্থ্যঝুঁকিতে নিষেধাজ্ঞার প্রথম দিন পার করেছেন তাঁরা। এমনকি সব শিল্প-কারখানার শ্রমিকদের যাতায়াতের ব্যবস্থাও করেননি কর্তৃপক্ষ।

লরেন্স রয় রাজধানীর বনানীর একটি গার্মেন্টসের এডমিনের দায়িত্বে আছেন। বাসা সাভারে। একুশে নিউজকে তিনি বলেন, ‘আগে ১০০ টাকা ভাড়া দিয়ে নিশ্চিন্তে অফিসে যেতে পারতাম। কিন্তু কাল প্রথমে সাভার থেকে ভেঙ্গে ভেঙ্গে রিকশায় গিয়েছি। এরপর তিনজন মিলে একটি সিএনজি ঠিক করে বনানীতে পৌঁছেছি। খরচ হয়েছে ৫০০ টাকা। পাশাপাশি স্বাস্থ্যঝুঁকিও বেড়েছে।’

নিষেধাজ্ঞায় কাঁচাবাজার ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত উন্মুক্ত স্থানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে কেনাবেচা করার কথা ছিল। বাজার কর্তৃপক্ষ ও স্থানীয় প্রশাসনের তা নিশ্চিত করার কথা ছিল। তবে গতকাল সকালে বিভিন্ন এলাকার কাঁচাবাজারের চিত্র দেখা গেল আগের মতোই। মানুষের ভিড় ছিল। প্রশাসনের পক্ষ থেকে খোলা জায়গায় বাজার স্থাপনের কোনো উদ্যোগও ছিল না।

নিষেধাজ্ঞার মধ্যে হোটেল-রেস্তোরাঁয় বসে খাওয়ার অনুমতি নেই। কিন্তু অনেক এলাকায় তা মানতে দেখা গেল না। বিশেষ করে নিম্ন আয়ের লোকজন যাঁরা বাসার বাইরে খাবার খান, তাঁরা হোটেল-রেস্তোরাঁয় বসেই খাবার সেরে নেন। বিশেষ করে অলিগলির হোটেল চলেছে আগের মতোই।

শপিং মলসহ অন্য দোকানগুলো বন্ধ রাখার নিষেধাজ্ঞা বেশির ভাগই মানা হয়েছে। তবে মার্কেটের বাইরে কেউ কেউ কিছু সময়ের জন্য দোকান খোলেন। রাজধানীর মোহাম্মদপুর এলাকায় দুপুরের দিকে মূল সড়কের পাশেই মটর পার্টস, স্যানিটারি ও ইলেকট্রনিকসের বেশ কিছু দোকান খোলা দেখা যায়।

রাজধানীর মালিবাগে মৌচাক মার্কেট, টুইন টাওয়ার, শান্তিনগরে কর্ণফুলী সুপারমার্কেটসহ বড় শপিং মলগুলো বন্ধ ছিল। রাস্তায় রিকশার সংখ্যা বেশি থাকায় হঠাৎ হঠাৎ জটও লেগে যায়। রামপুরা, মালিবাগ, কাকরাইল, শান্তিনগর, মিরপুর, ও মোহাম্মদপুর এলাকায় হোটেল-রেস্তোরাঁয় লোকজনকে বসে খেতে দেখা গেছে। শান্তিনগর, মালিবাগ রেলগেট ও মোহাম্মদপুর টাউন হলের কাঁচাবাজারে ছিল ব্যাপক ভিড়। সেখানে মানুষজনকে স্বাস্থ্যবিধি মানতেও কম দেখা গিয়েছে।

গতকাল দুপুর ১ টায় গাবতলী বাস টার্মিনালে গিয়ে দেখা যায়, দূরপাল্লার কোনো বাস ছেড়ে যায়নি। তবে নিম্ন আয়ের, বিশেষ করে যাঁরা মার্কেটে ও শপিং মলে কাজ করেন তাঁরা গ্রামের বাড়ি যাওয়ার জন্য গাবতলীতে এসেছেন। তাঁরা দীর্ঘক্ষণ বাস না পেয়ে ট্রাক, পিকআপ, অটোরিকশা ভাড়া করছেন। আবার কয়েকজনে মিলে প্রাইভেট কারও ভাড়া করছেন। আবার যেকোনো ধরনের যানবাহন ওই সড়কের সামনে এলে সবাই হুড়াহুড়ি করে ওঠার চেষ্টা করছেন।

চট্টগ্রাম জেলা সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপের মহাসচিব গোলাম রসুল বাবুল গতকাল বিকেলে একুশে নিউজকে বলেন, ‘গণপরিবহন বন্ধ থাকলেও নগরে পিকআপ, মাইক্রোবাস, টমটম, টেম্পোসহ অন্য সব যানবাহন চলাচল করেছে। গণপরিবহন না চলায় মানুষের দুর্ভোগ বেড়ে গিয়েছে। অন্য সব গাড়ি চলতে পারলে বাস, মিনিবাস চলাচলে বাধা কোথায়?’ তিনি বলেন, বিভিন্ন স্টিকার লাগিয়েও অনেক যানবাহন চলাচল করেছে। নগরে দুই লাখের বেশি রিকশা রয়েছে। সব রিকশাই রাস্তায় চলছে।’

রংপুরে প্রধান সড়কের দোকানপাট বন্ধ থাকলেও অন্যান্য সড়কের পাশের দোকান আংশিক খোলা রেখে বেচাকেনা করতে দেখা যায়। পুলিশ ও স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিষেধাজ্ঞা মানার জন্য মাইকিং করা হলেও অনেকেই তা আমলে নিচ্ছে না।

ময়মনসিংহেও অনেকটা ঢিলেঢালা ভাব ছিল। হাট-বাজারগুলোতে বেশ ভিড় ছিল। অনেককে মাস্ক ব্যবহার করতে দেখা যায়নি। নগরে কমবেশি রিকশা চলাচল করেছে। তবে কোনো বাস চলাচল করেনি। দ্বিগুণ ভাড়া দিয়ে অন্য বাহনে আশেপাশের জেলায় যাতায়াত করেছে লোকজন। তবে বিপণিবিতান বন্ধ ছিল।

বগুড়ায় অপ্রয়োজনে রাস্তায় মানুষ ছিল। পাড়া-মহল্লায় আড্ডাও চলেছে। আবার ঘুরতে বের হয় অনেকে। পুলিশসহ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অনুরোধ মানছে না অনেকেই। কাঁচাবাজারে ছিল বেশ ভিড়। (প্রতিবেদনটি তৈরিতে সহায়তা করেছেন একুশে নিউজের নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিরা)

ekushe-news24 health– জনস্বাস্থ্যবিদেরা বলছেন, টিকা আসার আগপর্যন্ত নতুন এই ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধের মূল উপায় হলো স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা। মাস্ক পরা, কিছু সময় পরপর সাবান-পানি দিয়ে হাত ধোয়া, জনসমাগম এড়িয়ে চলা এবং সামাজিক দূরত্ব মেনে চলা। কিন্তু এই স্বাস্থ্যবিধি গুলো মেনে চলার ক্ষেত্রে ঢিলেঢালা ভাব দেখা যাচ্ছে। এতে সংক্রমণ আবার বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা আছে। ঘর থেকে বের হবার সময় অবশ্যই মাস্ক পরুন। রাস্তায় মাস্ক ছাড়া বের হলেই জরিমানা।

যেভাবে নিবন্ধন করোনার টিকা নিতে আগ্রহীদের নিবন্ধন করতে হবে ‘সুরক্ষা’ নামক ওয়েব পোর্টালে (www.surokkha.gov.bd)। অ্যান্ড্রয়েড বা অ্যাপল প্লে স্টোর থেকেও সুরক্ষা মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করেও করা যাবে নিবন্ধন।

মতামত লিখুনঃ



আরও পড়ুন

জাতীয় অর্থনীতিতে নারীর অবদান সবচেয়ে বেশি, পলক

আন্তর্জাতিক অভিবাসন নিরাপদ ও মানবিক হতে হবে, মন্নুজান সুফিয়ান

অপরাধ দমনে পুলিশ কার্যকর ভূমিকা রাখছে,গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী

খেলাধুলার উন্নয়নে তৃণমূল থেকে আরো বেশি মেধা খুঁজে বের করার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

রাজনীতি কেনাবেচার পণ্য নয়, কাদের

অর্থনীতি আয়কর মেলা : প্রথম দিনে আয় ২১৮ কোটি টাকা

আ’লীগের মনোনয়ন পেলেন যে তারকারা, যারা অপেক্ষায়

গত ৬ ডিসেম্বর কবি নজরুল কলেজের ছাত্রী নিখোঁজ

ঢাকা উত্তরের ৩৩ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী আসিফ নির্বাচনি প্রচারনা শুরু

কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধিতে উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহারের বিকল্প নেই, কৃষিমন্ত্রী

© ২০১৮-২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | একুশেনিউজ২৪